, মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০

প্রকাশ :  ২০১৯-১২-১৫ ১১:৩৪:৪৫

শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগকে নতুনভাবে সাজাতে চান: সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের

ঢাকা প্রতিনিধি :

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দলকে নতুনভাবে সাজাতে চান। সে লক্ষ্য নিয়ে কাজ চলছে। তিনি বলেন, ভারতের সংসদে যে আইন (নাগরিকত্ব বিল) পাস হয়েছে, সেটি তাদের অভ্যন্তরীণ ব্যাপার।

আজ রোববার বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে স্বেচ্ছাসেবক ও শৃঙ্খলা উপকমিটির বৈঠকে এসব কথা বলেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন উপলক্ষে আয়োজিত বৈঠকে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলনের জন্য আমরা প্রস্তুত। সম্মেলনে দেশের বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাদের আমন্ত্রণ জানানো হবে। সম্মেলনে বিদেশি কোনো অতিথিকে দাওয়াত দেওয়া হবে না। তবে বাংলাদেশে বিভিন্ন দূতাবাসের কর্মকর্তাদের দাওয়াত দেওয়া হবে।’ মুজিব বর্ষের অনুষ্ঠানে বিদেশি অতিথিদের দাওয়াত দেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

সেতুমন্ত্রী কাদের বলেন, ‘আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দলকে নতুনভাবে সাজাতে চান। সে লক্ষ্য নিয়ে আমরা কাজ করছি। আওয়ামী লীগের সম্মেলনে প্রায় দুই হাজার স্বেচ্ছাসেবক ও শৃঙ্খলা কমিটির সদস্য কাজ করবে।’ আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন উপলক্ষে গঠিত স্বেচ্ছাসেবক ও শৃঙ্খলা উপকমিটির সদস্যদের দায়িত্বশীলতার সঙ্গে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, এবারের সম্মেলনে সর্বকালের সর্ববৃহৎ উপস্থিতি থাকবে।

ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলনের জন্য তৈরি মঞ্চ ১৯ ডিসেম্বর পরিদর্শন করবেন ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের ৮১ সদস্যের কেন্দ্রীয় কমিটির পরিধি ঠিক থাকবে। ১৮ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় গণভবনে দলের কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠকে কাউন্সিলের বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হবে বলেও জানান তিনি।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘ভারতের সংসদে যে আইন পাস (নাগরিকত্ব বিল) হয়েছে, সেটি তাদের অভ্যন্তরীণ ব্যাপার। ভারত সরকারের সঙ্গে আমাদের সুসম্পর্ক রয়েছে। কোনো বিষয়ে আমাদের সঙ্গে ভারতের সমস্যা হলে তা আলোচনা করে সমাধান করা হবে।’

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খানের সভাপতিত্বে এবং আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিমের সঞ্চালনায় সভায় দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক বক্তব্য দেন। এ সময় আওয়ামী লীগের সংস্কৃতিবিষয়ক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক সম্পাদক মৃণাল কান্তি দাস, উপদপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়াসহ স্বেচ্ছাসেবক ও শৃঙ্খলা উপকমিটির সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

আরো সংবাদ