, সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০

সোমবার

বিষয় :

প্রকাশ :  ২০১৯-০১-১৭ ১৬:৫৪:৫৪

সংরক্ষিত আসনে এমপি হিসেবে এ্যাডভোকেট কামরুন নাহারকে দেখতে চায় চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলাবাসী

 কাইছার ইকবাল চৌধুরী, চট্টগ্রাম:

সংরক্ষিত মহিলা আসনের এমপি হিসেবে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক ও চট্টগ্রাম আইনজীবী সমিতির সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি ও মহিলা নেত্রী এ্যাডভোকেট কামরুন নাহারকে দেখতে চায় চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা(সাতকানিয়া-লোহাগাড়া) এর জনগণ।

আওয়ামী রাজনীতিতে চট্টগ্রামের রাজনীতির মাঠে সু-পরিচিত ও বিরামহীন ছুটে চলা এক মহিলা নেত্রী এ্যাডভোকেট কামরুন নাহার। পুরো চট্টলার রাজনীতিতে তিনি পরিচিত একমুখ। পেশায় আইনজীবী এ্যাডভোকেট কামরুন নাহার চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি। তিনিই প্রথম নারী যিনি আইনজীবী সমিতিতে নারী হিসেবে সিনিয়র সহ-সভাপতি পদে আসীন ছিলেন। সাংগঠনিক দায়িত্বটা চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলায় কিন্তু তার বিচরণ সর্বত্রে। 

গেল অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সাতকানিয়া-লোহাগড়া সংসদীয় আসনে দল মহাজোটের মনোনীত প্রার্থী আবু রেজা নদভী এমপির জন্য নিরলস কাজ করে গিয়েছেন তিনি। তিনি সাতকানিয়া-লোহাগড়ার প্রত্যন্ত অঞ্চলে ঘুরে ঘুরে নৌকায় ভোট চেয়েছেন, এবং বিপুল ভোটে নৌকার বিজয়ে কাজ করে গিয়েছেন।

জানাগেছে, তিনি শুধু তার নিজের সংসদীয় আসনে প্রচারনায় সীমাবদ্ধ থাকেন নি। তিনি চট্টগ্রামের আলহাজ্ব সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ(ভূমিমন্ত্রী), শামশুল ইসলাম চৌধুরী এমপি, মোস্তাফিজুর রহমান এমপি, নজরুল ইসলাম এমপি, এ.বি. এম. ফজলে করিম এমপি, ড. হাসান মাহমুদ(তথ্যমন্ত্রী), মহিবুল হাসান চৌধুরীর নওফেল(শিক্ষা উপমন্ত্রী), আফসারুল আমিন এমপি, এম এ লতিফ এমপি, মাইনু্দ্দিন খান বাদল এমপি‌”র প্রচারনায় অংশ নিয়েছিলেন। 

তিনি চট্টগ্রামের ১০ টির ও অধিক সংসদীয় আসনে নৌকার প্রচারনায় অংশ নিয়েছেন। তিনি বিভিন্ন স্থানে পথ সভায় বক্তব্য রেখেছেন, সকলকে অনুরোধ করেছেন নৌকার ভোট দেয়ার জন্য। উন্নয়নের বিভিন্ন দিক তুলে ধরে নৌকায় ভোট চেয়েছেন তিনি। নির্বাচন চলাকালীন সময়ে এ্যাডভোকেট কামরুন নাহার পুরো চট্টগ্রামে এক আলোচিত নাম। তিনি নির্বাচনের দিনে ও ব্যাপক পরিশ্রম করেছিলেন, এই সময়ে তিনি বিভিন্ন কেন্দ্র পরিদর্শন করেন বলেও জানা যায়। একাদশ জাতীয় নির্বাচনে তিনি দলীয় প্রচারনায় সম্মুখে থেকে দলের বিজয়ে ভূমিকা রেখেছেন।

নির্বাচন ও তার রাজনীতির সামগ্রিক অবস্থা জানতে চাইলে বঙ্গনিউজ টোয়েন্টিফোরকে তিনি বলেন, আমার ২৬ বছরের রাজনীতির জীবনে আমি সবসময় চেষ্টা করেছি দলের জন্য নিঃস্বার্থ ভাবে কাজ করে যেতে, লোহাগাড়া মহিলা আওয়ামীলীগের দায়িত্ব পালনকালে আমি নারীদের সু-সংগঠিত করার চেষ্টা করেছি, পূর্বে জামায়াতের দুর্গ নামে খ্যাত সাতকানিয়া– লোহাগাড়ায় দলের জনগন অনেক অত্যাচার সহ্যকরেও কখনো পিছপা হয় নি।

বিগত ৩টি সংসদীয় নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন না পেলেও আমি কখনো হাল ছাড়িনি, এবার আমি অবশ্যই আশাবাদী। আশা করি চতুর্থবারের সফল প্রধানমন্ত্রী, মানবতার মা ও দেশরত্ন শেখ হাসিনা আমাকে সুনজরে দেখবেন। যখন সবাই অনলাইন নির্ভর প্রচারনায় ব্যস্ত তখন আমি চেষ্টা করেছি দলের স্বার্থে মাঠে থাকতে। আমি আশাবাদী আমার পরিশ্রমের মূল্যায়ন হবে এবার। আমি এলাকার জনসাধারণদের জন্য কাজ করতে চাই। 

উল্লেখ্য যে, আজ ১৭ই জানুয়ারি মনোনয়ন ফরম জমা দেন এ্যাডভোকেট কামরুন নাহার। তিনি চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক, মহিলা আওয়ামীলীগ চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলার সাবেক আইন বিষয়ক সম্পাদক, চট্টগ্রাম আইনজীবী সমিতির সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব পরিষদ চট্টগ্রাম জেলার সভাপতি, বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ চট্টগ্রাম জেলার সাধারণ-সম্পাদক। এছাড়া বিভিন্ন মানবাধিকার সংস্থা এবং সামাজিক সংগঠনের সাথেও জড়িত থেকে নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন তিনি।

আলাপকালে সাতকানিয়ার ব্যবসায়ী রেজাউল বলেন, সংসদে আমাদের কথা বলার জন্য এ্যাডভোকেট কামরুন নাহার আপাকে সংরক্ষিত মহিলা আসনে এমপি হিসেবে পেতে চাই।
আলাপকালে চট্টগ্রামের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মোহাম্মদ ইলিয়াছও বলেন, চট্টগ্রামের একজন পরিচ্ছন্ন, নির্লোভ, নিরহংকার, দলের জন্য ত্যাগী ও পরিচ্ছন্ন একজন রাজনীতিবীদ এ্যাডভোকেট কামরুন নাহার আপা। সংসদে আমাদের কথা বলার জন্য এ্যাডভোকেট কামরুন নাহার আপাকে এবারে সংরক্ষিত মহিলা আসনে এমপি হিসেবে পেতে চাই। উল্লেখ্য যে, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মোহাম্মদ ইলিয়াছ এর বাড়ি লোহাগাড়ার চুনতি ইউনিয়নে।
চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলার নেতাকর্মীরা বলেন, এ্যাডভোকেট কামরুন নাহার চট্টলার রাজনীতিতে তিনি পরিচিত একমুখ। আমাদের প্রাণের দাবি সংরক্ষিত মহিলা আসনে এ্যাডভোকেট কামরুন নাহার আপাকে সংসদ সদস্য হিসেবে দেখতে চাই।

আরো সংবাদ