, সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০

সোমবার

বিষয় :

প্রকাশ :  ২০১৮-১২-২৩ ১৪:১৯:২৬

সেনাবাহিনী মাঠে নামার পরই মাঠে নামবে বিএনপি

নিজস্ব প্রতিবেদক, বঙ্গনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম.
নানা প্রতিবন্ধকতা উপেক্ষা করে জোরেশোরেই নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন ঢাকা-১৪ আসনে ধানের শীষের প্রার্থী সৈয়দ আবু বক্কর সিদ্দিক (সাজু)। আগামীকাল (সোমবার) সেনাবাহিনী মাঠে নামার পরই একযোগে বিএনপির সকল নেতাকর্মী নির্বাচনী প্রচারণায় নেমে গণজোয়ার তৈরি করবেন বলে জানিয়েছেন বিএনপির এই প্রার্থী।

ঢাকা-১৪ আসনে ধানের শীষের প্রার্থী আবু বক্কর সিদ্দিক সাজু রোববার জাগো নিউজকে বলেন, আওয়ামী লীগের নৌকা প্রার্থীর ভয়-ভীতি, হামলা-আক্রমণ, পুলিশি মামলা, গ্রেফতার পেরিয়ে আমরা নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছি। প্রতিদিন সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত গণসংযোগ, উঠান বৈঠক, পথসভা ও প্রচারপত্র বিলি করা হচ্ছে। এ আসনের সাতটি ওয়ার্ড ও একটি ইউনিয়নে প্রায় ৩০ হাজার নেতাকর্মী প্রচার-প্রচারণার কাজ করে যাচ্ছেন।

সাজু বঙ্গনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, গত এক সপ্তাহে বিভিন্ন ধরনের মামলা দিয়ে আমার শতাধিক নেতাকর্মীকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। অনেকে গ্রেফতার আতঙ্কে রয়েছেন। এসব প্রতিবন্ধকতার মধ্য দিয়েও আমি সকাল থেকে রাত পর্যন্ত নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছি। এলাকার মানুষ আমাকে ভালোবাসেন। তারা ধানের শীষের প্রতীকে ভোট দিয়ে জয়ী করতে চান। নৌকা মার্কায় সঙ্গে প্রতিযোগিতায় বিপুল ভোটের ব্যবধানে জয়লাভ করবেন বলে দাবি করেন তিনি।

বিএনপির এই প্রার্থী বলেন, সোমবার থেকে নির্বাচনী নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সারাদেশে সেনাবাহিনী মাঠে নামবে। তাই সোমবার সকাল থেকে ঢাকা-১৪ আসনের সাতটি ওয়ার্ড ও একটি ইউনিয়নের সকল নেতাকর্মী ও অনুসারী মিলে একযোগে মাঠে নামবেন। মাঠে নেমে তারা কয়েকটি দলে আলাদাভাবে প্রচার-প্রচারণা শুরু করবেন। সকাল-বিকেল দুই দফায় প্রধান সড়কগুলোতে তারা গণসংযোগ, পোস্টার বিলি ও পথসভা করবেন। একটি স্থানে কেন্দ্রীয়ভাবে এ কার্যক্রম করা হবে। সকলে সেখানে এসে অবস্থান করবেন। এ জন্য তারা পুলিশি সহযোগিতা পেতেও আবেদন করেছেন। এর মাধ্যমে সারাদেশে ধানের শীষের জোয়ার সৃষ্টি হবে।

বিএনপি নেতাকর্মীদের গ্রেফতার, হামলা ও প্রচারণা কাজে বাধা সৃষ্টি করেই প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ প্রার্থী আসলামুল হক আসলাম ক্ষান্ত হননি উল্লেখ করে সাজু বলেন, নৌকা প্রার্থী নির্বাচনী আইন লঙ্ঘন করে মিরপুরের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পোলিং এজেন্ট হিসেবে দায়িত্বপ্রাপ্ত শিক্ষকদের নিয়ে গোপন বৈঠক করে যাচ্ছেন। রোববার বিকেলেও তেমন একটি বৈঠক কথা জেনেছেন। দায়িত্বপ্রাপ্ত পোলিং এজেন্টদের ব্যবহার করে গোপন ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে আওয়ামী লীগের প্রার্থী অবৈধভাবে জয়লাভ করার অপচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। বিষয়টি তিনি লিখিতভাবে নির্বাচন কমিশনকে জানিয়েছেন বলেও তিনি জানান।

আরো সংবাদ