, সোমবার, ২৬ অক্টোবর ২০২০

সোমবার

বিষয় :

প্রকাশ :  ২০১৮-১০-১৪ ০৯:৪৯:০৩

দেশের মানুষের শেষ ভরসা জাতীয় পার্টি : রুহুল আমিন

বঙ্গনিউজ টোয়েন্টিফোর ডেস্ক: জাতীয় পার্টি দেশের মানুষের শেষ ভরসা বলে দাবি করেছেন দলটির মহাসচিব এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার। তিনি বলেছেন, ‘দেশের মানুষ জানে, পল্লীবন্ধুর ৯ বছরের শাসনামলে উন্নয়ন এবং শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের যে নজির আছে, তা গেল ২৭ বছরে কেউ করতে পারেনি। জাতীয় পার্টি কোটি কোটি শান্তিপ্রিয় মানুষের নিরাপদ আশ্রয়স্থল। জাতীয় পার্টি দেশের মানুষের শেষ ভরসা।’

রোববার জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের বনানী কার্যালয়ে ২০ অক্টোবর সম্মিলিত জাতীয় জোটের মহাসমাবেশ উপলক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে রুহুল আমিন হাওলাদার এ কথা বলেন।

জাতীয় পার্টির মহাসচিব বলেন, ‘আগামী ২০ অক্টোবর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সম্মিলিত জাতীয় জোটের মহাসমাবেশে পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ নির্বাচন ও জোট গঠন নিয়ে কথা বলবেন- নতুন প্রজন্মের জন্য একটি নিরাপদ ও নতুন বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্নের কথা। মহাসমাবেশে তিনি জাতিকে দিক-নির্দেশনা দেবেন।’

বিগত নির্বাচনে জাতীয় পার্টির অংশগ্রহণের বিষয়টি টেনে এনে তিনি বলেন, ‘ক্ষমতা ছেড়ে দেয়ার পর গত ২৭ বছরের প্রতিটি সংসদে জাতীয় পার্টির অংশগ্রহণ ছিল। জাতীয় পার্টি একটি নির্বাচনমুখীদল। তাই আগামী নির্বাচনেও অংশ নিতে ৩০০ আসনেই প্রস্তুতি রয়েছে জাতীয় পার্টি।

রুহুল আমিন হাওলাদার বলেন, ‘দেশের মানুষ এখনও জাতীয় পার্টির ৯ বছরের সুশাসন ভুলে যায়নি। আমরা বিশ্বাস করি, আগামী নির্বাচনে জাতীয় পার্টি সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে সরকার গঠন করবে।’

সন্ত্রাস, সহিংসতা, দুর্নীতিমুক্ত বাংলাদেশ গড়তে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের বিকল্প নেই দাবি করে তিনি বলেন, ‘অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে জাতীয় পার্টি এখন অনেক বেশি শক্তিশালী। তাই আগামী নির্বাচনে জাতীয় পার্টি সাধারণ মানুষের রায় নিয়ে একটি আধুনিক ও নিরাপদ বাংলাদেশ গড়তে পারবে।’ এ সময় ২০ অক্টোবরের মহাসমাবেশ সফল করতে সম্মিলিত জাতীয় জোটের নেতাকর্মীদের প্রতি তিনি আহ্বান জানান।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য জিয়া উদ্দিন বাবলু, এস এম ফয়সল চিশতী, মেজর (অব.) খালেদ আখতার, শফিকুল ইসলাম সেন্টু, পার্টি চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা ক্বারী হাবিবুল্লাহ বেলালী, জাতীয় ইসলামী মহাজোটের চেয়ারম্যান আবু নাছের ওয়াহেদ ফারুক, বিএনএ চেয়ারম্যান সেকান্দার আলী মনি, বিএনএ মহাসচিব অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর হোসেন, বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের মহাসচিব মাওলানা আবদুল মতিন, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা জালালুদ্দিন আহমেদ, বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের যুগ্ম সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা সাইয়েদ মুজাফ্ফর আহমদ মুজাদেদ্দী, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের মহানগর সভাপতি মাওলানা এনামুল হক মুছা, কেন্দ্রীয় বায়তুলমাল সম্পাদক মাওলানা আজিজুর রহমান হেলাল, যুগ্ম সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট ইসলাম উদ্দিন দুলাল, জাতীয় ইসলামী মহাজোটের সিনিয়র কো-চেয়াম্যান কে এম আবু হানিফ হৃদয়, বিএনএ প্রধান সমন্বয়কারী মো. আখতার হোসাইন প্রধান, ইসলামী মহাজোটের মুখপাত্র ক্বারী মাওলানা মো. আসাদুজ্জামান, বিএনএ মুখপাত্র শেখ মোস্তাফিজুর রহমান প্রমুখ।

আরো সংবাদ