, রোববার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০

রবিবার

বিষয় :

প্রকাশ :  ২০১৮-০৪-১৯ ০৬:১৭:৫৮

চট্টগ্রামে পানি সরবরাহ ব্যবস্থার উন্নয়নে ২১৪ কোটি টাকার প্রকল্প

নিউজ ডেস্ক, বঙ্গনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম.

চট্টগ্রাম শহরে পানি সরবরাহ ব্যবস্থার উন্নয়নে ২১৪ কোটি টাকার প্রকল্প গ্রহণ করেছে সরকার। বুধবার সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে এ প্রকল্পটিসহ ১০টি ক্রয় প্রস্তাবের অনুমোদন দেয়া হয়। এসব প্রকল্পে মোট ব্যয় হবে প্রায় এক হাজার ৬১০ কোটি ৬০ লাখ টাকা।

সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির সভাপতি অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত সরকারি সফরে দেশের বাইরে থাকায় বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু। বৈঠকে কমিটির সদস্য, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সিনিয়র সচিব এবং সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সচিব ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। বৈঠক শেষে অনুমোদিত ক্রয় প্রস্তাবের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মোস্তাফিজুর রহমান।

মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, বৈঠকে চট্টগ্রাম ওয়াসার ‘চিটাগাং ওয়াটার সাপ্লাই ইমপ্রুভমেন্ট অ্যান্ড স্যানিটেশন’ প্রকল্পের আওতায় কালুর ঘাট থেকে পতেঙ্গা বুস্টার পাম্প স্টেশন পর্যন্ত সঞ্চালন মেইন ও আনুষঙ্গিক বিতরণ পাইপলাইন নির্মাণ কাজের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান নিয়োগের একটি প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এ প্রকল্পে ব্যয় হবে ২১৩ কোটি ৮৮ লাখ টাকা।

তিনি বলেন, রাজবাড়ী শহর রক্ষা (দ্বিতীয় পর্যায়) শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় ৪ দশমিক ৫০০ কিলোমিটার পদ্মা নদীর ডানতীর সংরক্ষণ এবং ৪ দশমিক ৭০০ কিলোমিটার ড্রেজিং কাজ সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর প্রতিষ্ঠান খুলনা শিপইয়ার্ড লিমিটেডের মাধ্যমে বাস্তবায়নের প্রস্তাব বৈঠকে অনুমোদন দেয়া হয়েছে। পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের এ প্রকল্পটি বাস্তবায়নে মোট খরচ হবে ৩২৮ কোটি ৯৬ লাখ টাকা।

কুমিল্লা জোনের চাঁদপুর সড়ক বিভাগের মতলবে ধনাগোদা নদীর উপর মতলব সেতু নির্মাণ (প্রথম সংশোধন) শীর্ষক প্রকল্পের ব্যয় বাড়ারও একটি প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে বলে জানান তিনি। প্রকল্পটির ব্যয় ধরা হয়েছিল ৫০ কোটি ৬৫ লাখ টাকা। বর্তমানে ৮ কোটি ১১ লাখ টাকা বেড়ে প্রকল্পের মোট ব্যয় দাঁড়িয়েছে ৫৮ কোটি ৭৬ লাখ টাকা।

অতিরিক্ত সচিব বলেন, বৈঠকে জিটুজি (গভর্নমেন্ট টু গভর্নমেন্ট) ভিত্তিতে ওমানের ওমান ট্রেডিং ইন্টারন্যাশানালের কাছ থেকে সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে এলএনজি ক্রয়ের নেগোসিয়েটেড প্রাইসিং চুক্তিপত্র অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, রূপকল্প-১ শীর্ষক প্রকল্পের কার্যক্রমের সালদা নর্থ-১ কূপ খননের কাজ বিজয়-১০ রিগ দ্বারা সুষ্ঠু ও নিরবিচ্ছিন্নভাবে পরিচালনার জন্য একজন বিশেষজ্ঞ টপ ড্রাইভ সার্ভিস ইঞ্জিনিয়ারের সেবা গ্রহণের ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এটি বিদ্যুৎ ও জ্বালানি দ্রুত সরবরাহ বৃদ্ধি (বিশেষ বিধান) আইন, ২০১০ এর আওতায়। হংকংভিত্তিক শিচুয়ান গুনওয়া নামের একটি প্রতিষ্ঠান এ সেবা দেবে। এ জন্য ব্যয় হবে ৮১ কোটি ৭ লাখ ৩৮ হাজার টাকা।

বৈঠকে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি দ্রুত সরবরাহ বৃদ্ধি (বিশেষ বিধান) আইন, ২০১০ এর আওতায় রূপকল্প-১ শীর্ষক প্রকল্পের কার্যক্রমের সালদা নর্থ-১ অনুসন্ধান কূপ খননের জন্য নিয়োজিত বিজয়-১০ রিগের একজন বিশেষজ্ঞ প্রোগ্রামারের সেবা গ্রহণের প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এতে ব্যয় হবে ৬৯ লাখ এক হাজার টাকা।

তিনি বলেন, বৈঠকে রূপকল্প-১ শীর্ষক প্রকল্পের কার্যক্রমের সালদা নর্থ-১ অনুসন্ধান কূপ খননের জন্য নিয়োজিত বিজয়-১০ রিগের ইলেক্ট্রিকাল বিভন্ন ধরনের যন্ত্রাংশ কেনার একটি ক্রয় প্রস্তাবও অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এটিও বিদ্যুৎ ও জ্বালানি দ্রুত সরবরাহ বৃদ্ধি (বিশেষ বিধান) আইন, ২০১০ এর আওতায়। এ প্রকল্পে ব্যয় হবে এক কোটি ১৮ লাখ ১১ হাজার টাকা। যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক একটি কোম্পানি এসব যন্ত্রাংশ সরবরাহ করবে।

অতিরিক্ত সচিব বলেন, ‘দেশের গুরুত্বপূর্ণ ১৫৬টি উপজেলা সদর/ স্থানে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন স্থাপন’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় ৩৪টি লটে ৩ ধরনের সরঞ্জামের মধ্যে ২টি লটে আহ্বানকৃত পুনঃদরপত্র প্রক্রিয়ার ভূতাপেক্ষ অনুমোদনসহ ১টি লটের সরঞ্জাম হিসাবে ৭৩টি স্মোক ইজেক্টর ক্রয়ের প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এই প্রকল্প ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অধিদফতর কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন। এতে ব্যয় হবে দুই কোটি ১১ লাখ ৬৯ হাজার টাকা।

এছাড় বৈঠকে রেলপথ মন্ত্রণালয়ের জন্য কোরিয়ার হুন্দাই রোটেম কোম্পানি থেকে ১০টি মিটার গেজ ডিজেল ইঞ্জিন ক্রয়ের একটি প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এতে ব্যয় হবে ৪০০ কোটি ১৫ লাখ টাকা। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন বিএসএমএমইউর অধীনে ‘সুপার স্পেশিয়ালাইজড হাসপাতাল স্থাপন’ শীর্ষক প্রকল্পের নির্মাণ কাজের একটি ক্রয় প্রস্তাবও অনুমোদন দেয়া হয়।

এর আগে শিল্পমন্ত্রীর সভাপতিত্বে অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে বাংলাদেশ জুট কর্পোরেশনের (বিলুপ্ত) ময়মনসিংহ জেলায় অবস্থিত মেসার্স গজরাজ পান্নালাল নামের সম্পত্তি ক্রেতা বরাবরে রেজিস্ট্রি দলিল প্রদানের বিষয়ে নীতিগত অনুমোদন দেয়া হয়।

আরো সংবাদ