, শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০

শনিবার

বিষয় :

প্রকাশ :  ২০১৮-০৪-০২ ১৬:২৯:৫৪

চট্টগ্রামের লোহাগাড়ায় সরকারি খাসজমি থেকে অবৈধ দখল উচ্ছেদ করেছেন ইউএনও

কাইছার ইকবাল চৌধুরী, বঙ্গনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম.

চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলার পদুয়া ইউনিয়নে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহবুব আলমের উপস্থিত নির্দেশে সরকারি খাসজমির উপর কাঁটাতারের দেয়া বেঁড়া ও পাকা দেয়ালের অবৈধ দখল উচ্ছেদ করা হয়।

২রা এপ্রিল (সোমবার) দুপুর ১টায় পদুয়া ইউনিয়নের তেওয়ারিখীল এলাকায় এ উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হয়।

তেওয়ারিখীল এলাকার মৃত জাফর আহমদ সওদাগরের পুত্র নুরুল আলমের অভিযোগের ভিত্তিতে এ অভিযান পরিচালনা করা হয় বলে ইউএনও সূত্রে প্রকাশ।

উপস্থিত এলাকাবাসী ও অভিযোগকারী নুরুল আলমের সাথে কথা বলে জানাযায়, দীর্ঘ চল্লিশ বছর ধরে সে ও তার পরিবার এই রাস্তা দিয়ে চলাচল করে আসছিল। হঠাৎ এলাকার কিছু অসাধু লোকজন তার চলাচলের রাস্তায় এসে গতকিছুদিন আগে তার কাছ থেকে তিনলক্ষ টাকা চাঁদা দাবী করে। আলম সেই টাকা দিবেনা বলাতে তারা রাতারাতি কাঁটাতারের বেঁড়া ও পাকা দেয়াল তুলে তার পরিবারকে রাস্তা চলাচলে বাঁধাগ্রস্ত করে।

সরেজমিনে দেখা যায় যে, প্রায় ৬০০ফুট রাস্তার মধ্যে মাত্র ১২০ফুট রাস্তা খাসজমির উপর এবং বাকি রাস্তাটির পুরোজমিই নুরুল আলমের পিতার ক্রয়কৃত সম্পত্তির উপর। এছাড়াও দেখা যায় যে, চলাচলের জন্য দীর্ঘদিনের এ রাস্তাটি ছাড়া তাদের বিকল্প অন্যকোন রাস্তা নেই।

পদুয়া ইউনিয়ন ভূমি অফিস সূত্রে পাওয়া তথ্যমতে, পদুয়া মৌজার বি.এস ৩১৬৭০ দাগ শ্রেণী টিলা জমির পরিমাণ ১.০০০০ একর বি.এস ০১নং খাস খতিয়ানভুক্ত যা গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে চট্টগ্রাম ডেপুটি কমিশনারের নামে জরিপ আছে। উক্ত দাগের পশ্চিমাংশে উত্তর-দক্ষিণ লম্বা পায়ে হাঁটার ও দীর্ঘদিন যাবৎ চলাচলের একটি রাস্তাও রয়েছে। নালিশী বি.এস ৩১৬৭০ দাগের উত্তরে বি.এস ৩১৬৮৮ দাগ ব্যক্তি মালিকানাধীনে নুরুল আলমের বাড়ী আছে এবং রাস্তার প্রায় ৪৮০ফুট তার মালিকানা জায়গার উপর অবস্থিত।

স্থানীয়সূত্রে জানা যায়, চট্টগ্রাম ডেপুটি কমিশনারের নামে জরিপ থাকা সত্ত্বেও সরকারী খাসজমি দখল করে এলাকার কিছু প্রভাবশালী ও অসাধু ব্যক্তিরা জোটহয়ে এতদিন আলমের অসহায় পরিবারের কাছ থেকে চাঁদা দাবী করে আসছিল এবং তাদের রাস্তায় চলাচল করতে দিচ্ছিলনা।

লোহাগাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহবুব আলম জানান, দীর্ঘ ৪০বছর যাবৎ এই রাস্তা দিয়ে নুরুল আলমের পরিবার ও লোকজন চলাচল করে অাসছিল বলে তদন্ত সাপেক্ষে জানতে পারি। সরকারি খাসজমিটি কারো একক সম্পত্তি নয়!

তিনি আরো বলেন, সেখানে কাঁটা তার এবং পাকা দেয়াল দিয়ে দখল করে ভোগ করা অবৈধ। খাসজমির উপর রাস্তা হিসেবে সবাই চলাচল করতে পারে। কিন্তু মানুষের চলাচলের রাস্তা বন্ধ করে এককভাবে কাঁটা তার ও দেয়াল দিয়ে দখল করে নেওয়া অবৈধ।

আজ সরেজমিনে গিয়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান,মেম্বার এবং সাংবাদিক সহ এলাকাবাসীদের উপস্থিতিতে খাসজমির উপর থেকে অবৈধ দখল উচ্ছেদ করি।

আরো সংবাদ